চ্যাগাস ডিজিজ (Chagas disease)

শেয়ার করুন

বর্ণনা

চ্যাগাস ডিজিজ একটি জ্বালাপোড়া সৃষ্টিকারী, সংক্রামক রোগ। ট্রায়াটোমাইন নামক পোকার মলে উপস্থিত এক ধরনের পরজীবি থেকে এর সংক্রমণ ঘটে। যে কোন ব্যাক্তির এ রোগ হতে পারে কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে শিশুরাই এর দ্বারা বেশি আক্রান্ত হয়। চিকিৎসা করা না হলে এর থেকে হৃদপিণ্ড এবং পরিপাক্ততন্ত্রে সমস্যা সহ অন্যান্য গুরুতর সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ রোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে পরজীবি ধ্বংস এবং পরবর্তীতে লক্ষণ ও উপসর্গ নিরাময় করা হয়। এছাড়াও ইনফেকশনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বিভিন্ন উপায় মেনে চলার পরামর্শ দেয়া হয়।

কারণ

ট্রাইপ্যানোসোমা ক্রুজি নামক পরজীবির কারণে এ রোগ হয়ে থাকে। যা ট্রায়াটোমাইন নামক পোকার কামড়ের মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। এই পোকা যখন T. cruzi দ্বারা আক্রান্ত কোন প্রাণীর শরীর থেকে রক্ত শোষণ করে তখন এই পরিজীবি এরা সংক্রমিত হয়। আক্রান্ত পোকা মানুষের শরীরে রক্ত শোষণ করার পর মলত্যাগের মাধ্যমে মানুষের ত্বকে এই জীবাণু ছড়িয়ে যায়। পরবর্তীতে এই পরজীবি চোখ, মুখ, কাটা জায়গা অথবা পোকার কামড়ানোর স্থানের সাহায্যে শরীরের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে।

পোকা কামড়ানোর পর ঐ স্থান চুলকালে এবং ঘষলে পরজীবিগুলো সহজেই দেহের ভিতরে ঢুকতে পারে এবং শরীরে প্রবেশ করার সাথে সাথে এরা বংশ বিস্তার করা শুরু করে দেয়। এছাড়াও অন্যান্য যেসব কারণে এই রোগ হয়ে থাকে সেগুলো হলঃ  

  • খাবার ভালোভাবে রান্না করা না হলে।
  • গর্ভবতী মা এই পরজীবি দ্বারা আক্রান্ত হলে গর্ভের শিশুও সংক্রমিত হয়।
  • এ রোগের জীবাণু আছে এমন রক্ত শরীরে আদান প্রদান করা হলে।
  • T. cruzi দ্বারা আক্রান্ত ব্যাক্তির অঙ্গ প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন করা হলে।
  •  ল্যাবরেটরীতে কাজ করার সময় দূর্ঘটনাজনিত কারণে এর জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হলে।
  • জঙ্গলে কাজ করার সময় আক্রান্ত প্রাণীদের সংস্পর্শ থেকে।
  • পোষা প্রানী এ রোগে আক্রান্ত হলে।

লক্ষণ

এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে চিকিৎসকেরা নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি চিহ্নিত করে থাকেন:

ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়

যে সকল বিষয়ের কারণে এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়ঃ

  • দেশ বিদেশে ভ্রমণ
  • অনুন্নত দেশ
  • বাড়িঘর সঠিকভাবে নির্মাণ করা না হলে
  • গ্রাম্য এলাকা
  • মাটির ঘর
  • ইটের তৈরী ঘর
  • খড় দ্বারা নির্মিত ঘর
  • পোকামাকড়

   

যারা ঝুঁকির মধ্যে আছে

লিঙ্গঃ পুরুষদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ৯ গুণ বেশি । মহিলাদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে।

জাতিঃ শ্বেতাঙ্গদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১৩ গুণ কম। কৃষ্ণাঙ্গদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ৪ গুণ কম। হিস্পানিকদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ৪ গুণ। অন্যান্য জাতিদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১ গুণ কম।


সাধারণ জিজ্ঞাসা


উত্তরঃ না, শুধুমাত্র কিছু নির্দিষ্ট প্রজাতির পোকা এ রোগের জীবাণু ছড়ানোর জন্য দায়ী। আবার এই প্রজাতির সব পোকাই যে এই জীবাণু বহন করে তা কিন্তু নয়। অতএব কোন পোকা কামড়ালেই এ রোগ দ্বারা আক্রান্ত হবে এমন কোন কথা নেই। আবার কখনো কখনো একটি সুস্থ পোকা যদি চ্যাগাস ডিজিজে আক্রান্ত ব্যাক্তিকে কামড়ায় তাহলে ঐ পোকার এর জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।   

উত্তরঃ হ্যাঁ, গ্রাম্য এলাকায় গেলে অবশ্যই কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সম্ভব হলে প্লাস্টার নির্মিত বাড়িতে বসবাস করতে হবে এবং ঘরে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা থাকতে হবে। কারণ ছাড়পোকা বা বিছানার নিচে তোশকে যে সব পোকা থাকে সেগুলো অন্ধকারে ঘুরাঘুরি করে। ভ্রমনকারীদের মশারি সঙ্গে রাখতে হবে এবং খাবার যেনো দূষিত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।    

উত্তরঃ কোন কোন রোগ ক্রনিক পর্যায়ে চলে গেলেও রোগ নির্ণয়ের মাধ্যমে চিকিৎসা করে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। কিন্তু চ্যাগাস ডিজিজ একবার ক্রনিক পর্যায়ে চলে গেলে পরবর্তীতে চিকিৎসা করেও কোন ভালো ফলাফল পাওয়া যায়না। কারণ ঐ অবস্থায় তা হৃদপিণ্ড, পরিপাকতন্ত্র এবং অন্যান্য অঙ্গের যথেষ্ট ক্ষতিসাধন করে ফেলে। 

হেলথ টিপস্‌

এই সমস্যা প্রতিরোধের কয়টি উপায় হলঃ

  • মাটি, খড়ের ছাউনি এবং ইটের উপর ঘুমানো যাবে না।
  • মাটি, খড়ের ছাউনি এবং ইট নির্মিত ঘরের বিছানায় কীটনাশক ঔষধ ব্যবহার করতে হবে।
  • বাড়ি-ঘর এবং চারপাশে কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে।
  • ত্বকে পোকা তাড়ানোর ঔষধ ব্যবহার করতে হবে।


বিশেষজ্ঞ ডাক্তার

অধ্যাপক ডাঃ এম এ আজহার

মেডিসিন ( Medicine)

এমবিবিএস , এফসিপিএস(মেডিসিন) , এফআরসিপি(এডিন), এফএসিপি

প্রফেসর ডা: এ বি এম আব্দুল্লাহ

মেডিসিন ( Medicine)

MRCP(UK), FRCP(Edin)

প্রফেসর ডা: মোঃ মামুন আল মাহাতাব(স্বপনিল)

মেডিসিন ( Medicine), হেপাটোলজি ( লিভার) ( Hepatology)

প্রফেসর ডাঃ মোঃ আলি হোসেন

মেডিসিন ( Medicine)

MBBS,FCPS,MD

প্রফেসর ডা: খাজা নাজিম উদ্দীন

মেডিসিন ( Medicine)

MBBS(Dhaka),FCPS(Med), FRCP(Glasgo), FCPS(USA)

ডাঃএস জি মোগনী মওলা

মেডিসিন ( Medicine)

MBBS, FCPS(Medicine), FACP(America)

প্রফেসর ডা: আনিসুল হক

মেডিসিন ( Medicine)

MBBS,FCPS,FRCP(Edin),PHD(Gent)